শিক্ষক নিবন্ধনধারী ২ হাজার ৫০০ জনকে নিয়োগের নির্দেশ

১৩তম শিক্ষক নিবন্ধনে উত্তীর্ণ প্রায় আড়াই হাজার প্রার্থীকে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নিয়োগের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। বুধবার বিচারপতি কাশেফা হোসেন ও বিচারপতি ফাতেমা নজীবের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রায় দেন। রায়ের বিষয়টি দৈনিক শিক্ষাডটকমকে নিশ্চিত করেছেন আইনজীবী সিদ্দিক উল্লাহ মিয়া।

তিনি বলেন, ১৩তম নিবন্ধনধারীদের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিয়োগের কথা ছিলো। কিন্তু এনটিআরসিএ তাদের নিয়োগ দেয়নি। কিন্তু বিভিন্ন সময় দেয়া নানা মামলার রায়ের প্রেক্ষিতে ১৩তম নিবন্ধনে উত্তীর্ণ হয়েছিলো এমন ২ হাজার ২০৭জন প্রার্থী নিয়োগ পেয়েছেন। ১৩তম নিবন্ধনে উত্তীর্ণ হয়েও যারা নিয়োগ পাননি তারা বিভিন্ন আইনজীবীর মাধ্যমে নয়টি রিট পিটিশন দায়ের করেন। এ নয়টি রিট পিটিশন নিষ্পত্তি করে কোর্ট প্রায় ২ হাজার ৫০০ প্রার্থীকে যতদ্রুত সম্ভব নিয়োগের নির্দেশ দিয়েছেন।

তিনি আরও বলেন, আমরা যুক্তি দিয়েছি যেহেতু ১৩তম নিবন্ধন অন্যান্য নিবন্ধনের থেকে আলাদা নিয়মে নিবন্ধিত হয়েছি। এ প্রার্থীরা শূন্যপদের ভিত্তিতে নিবন্ধিত হয়েছে। আর ইতোপূর্বে আমাদের সমপর্যায়ের একইসঙ্গে সনদধারী ২ হাজার ২০৭ জন নিয়োগ পেয়েছেন। সে রায়গুলোতে আমরা রেফারেন্স হিসেবে দেখিয়েছি। আদালত সন্তুষ্টু হয়ে নিয়োগেরর নির্দেশ দিয়েছেন।

জানা গেছে, বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এমপিও শূন্যপদে নিয়োগের জন্য এনটিআরসিএ ২০১৬ সালে ১৩তম শিক্ষক নিবন্ধনের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে। নিবন্ধন পরীক্ষায় তিন ধাপে প্রিলিমিনারি, রিটেন ও ভাইভা শেষে চূড়ান্তভাবে মোট ১৭ হাজার ২৫৪ জন উত্তীর্ণ হলেও এনটিআরসিএ তাদের সবাইকে নিয়োগ দেয়নি। কিন্তু তৃতীয় গণবিজ্ঞপ্তিতে আদালতের রায়ের প্রেক্ষিতে এ নিবন্ধনে উত্তীর্ণ ২ হাজার ২০৭জন নিয়োগ সুপারিশ পেয়েছেন। কিন্তু যারা রিট করেননি তারা নিয়োগ পাননি।

Leave a Comment