৩ বন্ধুর একটি দুর্দান্ত আইডিয়া! ১৪টি ব্যবসায় ব্যর্থ হয়ে আজ ৪০০০ কোটি টাকার কোম্পানির মালিক

মাতৃভাষায় কথা বলতে কে না স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে? ভারতের ভাষা বৈচিত্র্যের কথা আমরা সকলেই জানি। যদিও সোশ্যাল মিডিয়ায় এই মুহূর্তে ইংরেজির দখলটাই বেশি। কিন্তু ভাবুন তো কেমন হয় যদি আপনি আপনার মাতৃভাষার প্রয়োগ সোশ্যাল মিডিয়ায় করতে পারেন। এরকমই শেয়ার চ্যাট নামক একটি অ্যাপ তৈরি করা হয়েছে যাতে আপনি নিজের মতো করে নিজের ভাষার ব্যবহার করতে পারবেন।

বছর কয়েক আগে ভারতে লঞ্চ হয়েছিলো শেয়ার চ্যাট নামক অ্যাপটি। এর মধ্যেই ভারতে মাসিক 60 মিলিয়ন অ্যাক্টিভ ইউজার রয়েছে এই অ্যাপটির ভারতীয় সোশ্যাল মিডিয়ায় প্লাটফর্মে এত কম সময়ের মধ্যেই এই বিশাল সংখ্যক অ্যাক্টিভ ইউজারের অধিকারি এই অ্যাপ বর্তমানে সোশ্যাল মিডিয়ার নতুন বিল্পব বলে মনে করছেন অনেকেই। এর কারণ হল দেশের সমস্ত আঞ্চলিক ভাষায় এই অ্যাপটি ব্যবহার করার সুবিধা রয়েছে। আর সেই কারণেই গ্রাহকরাও কোনও রকম সমস্যা ছাড়াই নিজের তথ্য আপলোড সহ ব্যবহার করতে পারছেন অ্যাপ্লিকেশনটি।

লখনউয়ের ফরিদ এহসান, গোরখপুরের ভানু প্রতাপ সিং এবং গাজিয়াবাদের অঙ্কুশ সচদেবের যৌথ উদ্যোগে তৈরি হয় এই অ্যাপ্লিকেশনটি। তারা প্রত্যেকেই আইআইটি, কানপুরের ছাত্র।” সালটা 2017, বন্ধুমহলে এক কথোপকথনের সময় অঙ্কুশের মুখ থেকে জানা যায়, অনলাইন ফোরামে একটি আলোচনার সময় শচীন তেন্ডুলকরের গুণমুগ্ধ একজন একটি গ্রুপ তৈরি করেন। যেখানে সবাই নিজস্ব মতামত প্রকাশ করতো। এবং কিছুদিনের মধ্যেই ব্যাপারটা এতোটাই ছড়িয়ে যায় যে হাজার হাজার মানুষ সেখানে তাদের ফোন নাম্বার পোস্ট করতে থাকেন সেখানে।

অঙ্কুশ এই ফোন নাম্বার গুলির মধ্যে 1000টি নম্বর নিয়েছিলেন এবং 100-100 জনের 10-টি গ্রুপ তৈরি করেছিলেন টেন্ডুলকারের বিভিন্ন নাম দিয়ে। এবং অবিশ্বাস্যভাবে মাত্র এক ঘন্টার মধ্যে প্রতিটি গ্রুপ 500-700 মেসেজে ভরে যায়। কোনোরকম পরিশ্রম ছাড়াই মাত্র এক ঘন্টার মধ্যে 1000 জনের থেকে এতো বেশি তথ্য সংগ্রহ হয়েছিলো যা সত্যিই অবাক করার মতো। এবং সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ছিলো, পুরো আলোচনাটি হয়েছিলো স্থানীয় ভাষায়।

সেখান থেকেই অঙ্কুশ, ভানু, ফরিদ আঞ্চলিক ভাষা ব্যবহার করে শেয়ারচ্যাট অ্যাপের পরিকল্পনা করেন। 14 টি ব্যাবসায় ব্যর্থ হওয়ার পর হার না মানা উদ্যোগ নিয়ে শুরু করেন নতুন ব্যবসা। এই অ্যাপ্লিকেশনে দেশের বিভিন্ন প্রান্তের বিভিন্ন ভাষা রয়েছে। আর এই কারণেই ঝড়ের গতিতে গ্রাহক সংখ্যা বেড়ে মাসিক 60 মিলিয়নে দাঁড়িয়েছে। শেয়ারচ্যাটে খবর, কৌতুক, ভিডিও, জ্যোতিষশাস্ত্র, খেলার খবর, রূপোলী পর্দার গসিপ, নানা ধরনের ভিডিও সহ আরও অনেক কিছুর সুবিধা রয়েছে এই একটি অ্যাপের মাধ্যমেই।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, শেয়ার চ্যাটের এযাবৎ সংগ্রহ 1500 কোটিরও বেশি। এবং বর্তমানে কোম্পানিটির মূল্য 48650 মিলিয়ন ডলার অর্থাৎ 4,800 কোটি টাকা।

Leave a Comment