মাত্র ১২ বছর বয়সে নিজের কোম্পানির CEO, দাঁড় করিয়েছে লক্ষ টাকার ব্যাবসা

স্কুল জীবনের কোনো না কোনো সময় ক্লাস মনিটর হওয়া প্রতিটি শিশুরই ইচ্ছা, যাতে পুরো ক্লাসে তার একটা আলাদা পরিচয় তৈরি হয়। কিন্তু প্রত্যেক শিশুই কি ক্লাস মনিটর হতে পারে! হওয়ার সুযোগ পায় না, কারণ প্রত্যেক শিশুর ক্লাস পরিচালনা করার ক্ষমতা ও প্রতিভা সমান হয় না। কিন্তু আজ আমরা এমন এক শিশুর কথা বলতে যাচ্ছি যে স্কুলে পড়ার বয়সেই কোম্পানির সিইও হয়েছে।

এই শিশুর গল্পটি কেবল লক্ষ লক্ষ স্কুল শিশুকেই অনুপ্রাণিত করবে এমন না, তাদের প্রতিভার প্রতি বিশ্বাস রাখতেও শেখাবে। আপনি একটি ৯ বছর বয়সী শিশুর কাছ থেকে কী বা আশা করতে পারেন! অর্থাৎ, তাকে ভালভাবে স্কুলে যেতে হবে এবং তার পড়াশোনায় মনোনিবেশ করতে হবে। তবে মুম্বাইতে বসবাসকারী অদ্বৈত ঠাকুর এমন কীর্তি দেখিয়েছেন।

যা শুধু এক শিশু কেই না তাদের অভিভাবকদের কেও চমকে দিয়েছে। ৯ বছর বয়সী অদ্বৈত তার বয়সের বাচ্চাদের তুলনায় পড়াশোনায় শুধু দ্রুতই ছিলেন না, তিনি অল্প বয়সেই তার নিজস্ব ওয়েবসাইটও চালু করেছিলেন। ক্রমবর্ধমান বয়সের সাথে, অদ্বৈত তার শিক্ষা এবং বুদ্ধিমত্তার জোরে ১৮ বছর বয়সে ইতিমধ্যেই নিজের কোম্পানি খুলেছিলেন।

যার কারণে অদ্বৈত রবীন্দ্র ঠাকুর আজ কোম্পানির সিইও পদে রয়েছেন। এমতাবস্থায় প্রশ্ন জাগে এত কম বয়সে কীভাবে সাফল্য পেল এই ছোট্ট ছেলেটি! অদ্বৈতের বাবা রবীন্দ্র ঠাকুর পেশায় একজন আইটি প্রকৌশলী ছিলেন, তাই তার আইটি গুণটি জেনেটিক্যালি তার ছেলে অদ্বৈতের কাছে চলে যায়। রবীন্দ্র বাড়িতে থেকে কম্পিউটারে কোডিং এর কাজ করতেন।

তাই ছোটবেলা থেকেই অদ্বৈতের মনে কোডিং নিয়ে কৌতূহল জাগ্রত হতে থাকে। রবীন্দ্রও শীঘ্রই তার ছেলের পছন্দ এবং কৌতূহল সম্পর্কে জানতে পেরেছিলেন, যার পরে তিনি মাত্র ৬ বছর বয়সে অদ্বৈতকে কম্পিউটারের প্রাথমিক জ্ঞান দেওয়া শুরু করেছিলেন। কম্পিউটারের এই জগতকে অদ্বৈত এতটাই পছন্দ করতেন যে খেলনা নিয়ে খেলার বয়সেই তিনি কম্পিউটার।

এবং কীবোর্ডের সাথে বন্ধুত্ব করে নিয়েছিলেন। ৯ বছর বয়সে, অদ্বৈত ইন্টারনেট সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করেছিলেন, তারপরে তিনি একটি ওয়েবসাইট তৈরি করার সিদ্ধান্ত নেন। অদ্বৈত তার জ্ঞান অনুযায়ী ইন্টারনেট সমাধান প্রদানকারী একটি ওয়েবসাইট তৈরি করেছিলেন, এই কাজে তার বাবা রবীন্দ্রও তাকে সাহায্য করেছিলেন।

ইন্টারনেট সলিউশনের জন্য শুরু হওয়া ওয়েবসাইটটি এতটাই বিখ্যাত হয়ে ওঠে যে অদ্বৈত এর মাধ্যমে ব্যবসা শুরু করতে খুব বেশি সময় নেয়নি, তারপরে অদ্বৈতের ভাগ্য পুরোপুরি বদলে যায়। ওয়েবসাইটের কাজ শুরু করার পর, অদ্বৈত অনলাইন টিউটোরিয়ালের মাধ্যমে কোড করতে শিখেছে।

এবং এর মাধ্যমে তার কাজ বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। অনলাইন টিউটোরিয়ালের মাধ্যমে কীভাবে কোড করতে হয় তা শেখার পরে, অদ্বৈত তার ওয়েবসাইটের মাধ্যমে কয়েক দিনের মধ্যে দুটি ক্লায়েন্ট পেয়েছিলেন। অদ্বৈতের প্রথম ক্লায়েন্ট ছিল সতীশ হাওয়ার দিব্যাং সেন্টার এবং দ্বিতীয়টি ছিল বিউটিফুল টুমরো ফাউন্ডেশন, যেটি একটি এনজিও হিসাবে কাজ করেছিল।

এমন পরিস্থিতিতে, অদ্বৈত তার প্রথম ক্লায়েন্ট উভয়ের জন্য বিনামূল্যে ডিজিটাল বিপণনের কাজ করেছিলেন, যা বেশ পছন্দ হয়েছিল তাদের। এর পরে, অদ্বৈত প্রোগ্রামিং বই পড়েন এবং যতটা সম্ভব জ্ঞান অর্জনের চেষ্টা করতে থাকেন যাতে তিনি তার কোর্স ছাড়াও অন্যান্য ক্ষেত্রে ভাল করতে পারেন।
স্কুলে পড়ার সময়, অদ্বৈত অনলাইন ক্লাস।

এবং কলেজে পড়ানো প্রোগ্রামিং বই থেকে প্রচুর জ্ঞান সংগ্রহ করেছিলেন, যা তিনি তার ওয়েবসাইটকে সফল করতে ব্যবহার করেছিলেন। এইভাবে অদ্বৈত রবীন্দ্র ঠাকুর ওয়েবসাইটের সিইও হন। অদ্বৈতের মধ্যে প্রতিভার কোন অভাব ছিল না, কিন্তু তার সাফল্যের মাঝে তার বয়স বড় সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছিল।

ক্ষতির ভয়ে বাজারের কোনো কোম্পানিই ছোট বাচ্চাকে চাকরি দিতে চায়নি প্রথমে। একইসঙ্গে এত ছোট শিশু কীভাবে বাজারজাতকরণের ক্ষেত্র বুঝতে পারবে তাও বুঝতে পারছিলেন না প্রতিষ্ঠানটির মালিকরা। এমন পরিস্থিতিতে, অদ্বৈত দীর্ঘদিন ধরে তার ক্লায়েন্টদের বিনামূল্যে বিপণন পরিষেবা দিয়েছে।

যাতে কোম্পানিগুলি তার কাজ বুঝতে পারে। এমতাবস্থায়, কিছু সময় পর একটি বিদেশী অর্থ সংস্থা অদ্বৈতের প্রতিভায় আস্থা রেখে তাকে একটি ওয়েব পোর্টাল তৈরির দায়িত্ব অর্পণ করে। অদ্বৈত কোম্পানির প্রত্যাশার চেয়ে আরও ভালো কাজ করে, প্রথমবারের জন্য $৪০০ উপার্জন করেছে।

একটি বিদেশী কোম্পানিতে কাজ করার পরেই অদ্বৈত সত্যিকার অর্থে ব্যবসায়িক প্রযুক্তি বুঝতে পেরেছিলেন, তারপরে বাজারে কাজ করার ক্ষেত্রে তার আত্মবিশ্বাস অনেক বেড়ে ওঠে। এরপর অদ্বৈত রবীন্দ্র ঠাকুর অ্যাপেক্স ইনফোসিস ইন্ডিয়া নামে নিজের কোম্পানি চালু করেন। যে সময়ে অদ্বৈত তার কোম্পানির ভিত্তি স্থাপন করেছিলেন।

তখন তার বয়স ছিল মাত্র ১২ বছর এবং এত অল্প বয়সে অদ্বৈত কোম্পানির সিইওর তকমা পেয়েছিলেন। Apex Infosys India হল একটি স্বীকৃত ডোমেইন, যা তার গ্রাহকদের ডিজিটাল সমাধান প্রদানের জন্য নিবেদিত। তার কোম্পানি শুরু করার পর, Advait Google এর AI এবং ক্লাউড সহ অনেক ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মের সাথে কাজ করেছে।

যার কারণে Advait এর কোম্পানি বৃদ্ধির পথ খুলে দিয়েছে। এর পরে, অদ্বৈতের অ্যাপেক্স ইনফোসিস ইন্ডিয়া ভারতের সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ সংস্থাগুলির মধ্যে গণ্য করা হয়েছিল। এইভাবে অদ্বৈত একজন ভারতীয় কম্পিউটার প্রোগ্রামার এবং সেইসাথে একজন কিশোর ইন্টারনেট ব্যবসায়ী হয়ে ওঠে।

অদ্বৈতের যাত্রা এখনও চলছে, যাতে তিনি নিজের কাজকে উচ্চতর স্তরে নিয়ে যেতে পাড়েন। অদ্বৈত তার কোম্পানিকে বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় কোম্পানিগুলির মধ্যে একটি করার স্বপ্ন দেখেন, যার জন্য তিনি দিনরাত কঠোর পরিশ্রম করেন। Apex Infosys India হোম এবং কোম্পানিগুলির জন্য অটোমেশন, নেটওয়ার্কিং সিস্টেমের একটি নেতৃস্থানীয় প্রদানকারী হয়ে উঠেছে।

১২ বছর বয়সে নিজের কোম্পানির CEO দাঁড় করিয়েছে লক্ষ টাকার ব্যাবসা
অদ্বৈত অ্যাপেক্স ইনফোসিস ইন্ডিয়াকে এগিয়ে নিতে প্রযুক্তি কুইজ নামে একটি অ্যাপও তৈরি করেছে, যার মাধ্যমে শিশুরা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পর্কিত তথ্য পেতে পারে। এই অ্যাপের মাধ্যমে, অদ্বৈত লক্ষ লক্ষ শিশুকে সাহায্য করতে চায় যারা বিজ্ঞান এবং কম্পিউটারে আগ্রহী। এর সাথে, অদ্বৈত গুগলের সহায়তায় অটিজম সচেতনতা নামে একটি অ্যাপ ডিজাইন করেছে।

যা গ্রাহকদের অটিজম এবং এর সাথে সম্পর্কিত ব্যাধি এবং লক্ষণগুলি সম্পর্কে তথ্য দেয়। এই চিন্তাভাবনা এবং কঠোর পরিশ্রমের কারণে, অদ্বৈত রবীন্দ্র ঠাকুর ২০১৮ সালে ভারতের শীর্ষ ১০ তরুণ উদ্যোক্তার তালিকায় নিজের নাম নথিভুক্ত করেছেন।

এর সাথে, অদ্বৈতকে গ্লোবাল ইয়ুথ মার্কেটিং ফোরামের মাধ্যমে ২০১৯সালে জুম, সিএমও এশিয়া এবং ওয়ার্ল্ড ফেডারেশন অফ মার্কেটিং প্রফেশনালস দ্বারা মোস্ট ইনফ্লুশিয়াল ইয়াং মার্কেটিং প্রফেশনাল অ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হয়। একই সময়ে, ২০১৭ সালে, অদ্বৈত তরুণ উদ্যোক্তাদের তালিকায় চতুর্থ স্থান পেয়েছিলেন।

যেখানে মাত্র ২০ জনের নাম অন্তর্ভুক্ত ছিল। অদ্বৈত দ্বারা শুরু করা কোম্পানি, ওয়েবসাইট এবং অ্যাপ শত শত যুবকের কর্মসংস্থানের জন্য কাজ করেছে, যা নিজের জন্য অত্যন্ত গর্বের বিষয়। তবে অদ্বৈত ঠাকুর এখনও এই যাত্রায় থামতে চান না, কারণ তার স্বপ্নগুলি অনেক বড় এবং বিশ্বের সবচেয়ে ঋণদাতা সংস্থার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হতে চান।

Leave a Comment