বিশ্বাস না হলেও সত্য, মাত্র ২৩ বছর বয়সে প্রতিদিন ৪১ হাজার টাকা কামাচ্ছেন এই যুবতী

দিব্যা সাইনি রাজস্থানের সিকারের বাসিন্দা, তার বয়স ২৩। দিব্যার বাবা সানওয়ারমাল সাইনি তার মেয়ের প্রতিভা এবং তার ক্যারিয়ার সম্পর্কিত সমস্ত কিছুই শেয়ার করেছেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। সানওয়ারমালের মেয়ে দিব্যাকে নিয়ে গর্ব করেন তিনি। তিনি বলেন যে আমার মেয়েরা কোনও ছেলের তুলনায় কিছু কম নয়, আমি তাদের লালন-পালনে কোনো কমতি রাখিনি। কন্যা দিব্যা আমাজন কোম্পানিতে সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার পদের জন্য বার্ষিক ১.৫ কোটি টাকার প্যাকেজে নির্বাচিত হয়েছেন।

সেই অনুযায়ী প্রতি মাসে সাড়ে ১২ লাখ এবং প্রতিদিন ৪১ হাজার টাকা বেতন পাবেন দিব্যা। আমেরিকার সিয়াটলে অ্যামাজনের অফিসে কাজ করবেন দিব্যা। ১৫ জুলাই, দিব্যা তার ২৩ তম জন্মদিন উদযাপনের পরের দিন আমেরিকায় যান। দিব্যা সাইনি মাত্র ১২ বছর বয়সে ১২ তম বোর্ড পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছিলেন। ঘটনাটি ঘটেছে যখন দিব্যা যখন স্কুলে যেতে শুরু করেছিল, তখন তার বড় দাদা নীলোৎপল সাইনি তৃতীয় শ্রেণিতে পড়ত। তাই দিব্যা তার ভাইয়ের সঙ্গে তৃতীয় শ্রেণিতে বসার জন্য জেদ করে। তাকে এলকেজিতে বসাতে চাইলে সে স্কুলে যাওয়া বন্ধ করে দেয়।

ছয় বছর বয়সে দিব্যাকে পরীক্ষা দেওয়ানো হয় এবং স্কুলে ভর্তি করানো হয়। তাও ক্লাস সিক্সে এমন পরিস্থিতিতে মাত্র ১২ বছর বয়সে দ্বাদশ শ্রেণি পাস করেন দিব্যা। দিব্যা ১০ তম শ্রেণীতে ৭৭.৩ শতাংশ নম্বর, ১২ তম শ্রেণীতে ৮৩.০৭ শতাংশ নম্বর পেয়েছিলেন। এরপর দুই ভাই-বোন পাটনা এমএনআইটি থেকে বিটেক পড়া শুরু করেন। বিটেক করার পর, মাত্র ১৭ বছর বয়সে, দিব্যা হায়দ্রাবাদের অ্যামাজন কোম্পানিতে ২৯ লাখের বার্ষিক প্যাকেজে সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট ইঞ্জিনিয়ার-১ পদে চাকরি পান। সেই সঙ্গে দাদার চাকরিও হয় হায়দ্রাবাদে।

এই দিন দুই ভাইবোনই করোনা মহামারীর কারণে সিকার থেকে কাজ করছিলেন। এখান থেকে, দিব্যা আমেরিকার জন্য ১.৫ কোটির প্যাকেজে একই সংস্থায় নির্বাচিত হন। নীলোৎপল সাইনি দিল্লিতে গ্লোবাল ফাইবার চ্যালেঞ্জ দ্বারা আয়োজিত কর্থন এবং সাইবার চ্যালেঞ্জে তৃতীয় স্থান অর্জন করে ব্রোঞ্জ পদক জিতেছেন। নীলোৎপল সাইনি হায়দ্রাবাদের দিশা কোম্পানির একজন সিনিয়র সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার।

Leave a Comment